‘গণমাধ্যমে বিএনপির নিউজ একটু বেশি গেলেই ফোন যায়’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, বাংলাদেশে এখন সংবাদপত্রের শান্তিপূর্ণ স্বাধীনতা বলতে কিছু নেই। তাঁরা চাইলে সব কথা তুলে ধরতে পারেন না। বিএনপির নিউজ একটু বেশি দিলেই তাদের কাছে ফোন আসে।আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে নাগরিক প্রতিবাদ সভায় মওদুদ এসব কথা বলেন।
খালেদা জিয়ার কারাবাস দীর্ঘায়িত করার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন এই সভার আয়োজন করে।প্রবীণ এই আইনজীবী বলেন, নিম্ন আদালত সম্পূর্ণ সরকারের নিয়ন্ত্রণে চলে গেছে। বিশেষ করে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাকে তাড়িয়ে দেওয়ার পর গেজেট প্রকাশ করে পুরোটাই সরকারের নিয়ন্ত্রণে নেওয়া হয়েছে। আগে যেটি ছিল সুপ্রিম কোর্টের হাতে, কিন্তু এখন সেটি নির্বাহী বিভাগের নিয়ন্ত্রণে।
মওদুদ আরো বলেন, ‘এখন আর কোনো ভয়-ভীতি ও শঙ্কামুক্ত রায় দেওয়া সম্ভব নয়। সেটা আমি নিজে হলেও পারতাম না। কারণ, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা খাতা-কলমে আছে, কিন্তু বাস্তবে নেই। কোনো বিচারক মুক্তমনে বিচার করতে পারেন না।’অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি আমির হোসেন বাদশা। সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমদ আজম খান, এলডিপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত হোসেন সেলিম, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ প্রমুখ।
সূত্র: এনটিভি
আরো পড়ুন >> অ্যাটর্নি জেনারেল রাষ্ট্রের নন, প্রধানমন্ত্রীর আইন কর্মকর্তা: রিজভী
বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, খালেদা জিয়া ও তার দলের নেতাকর্মীদের সারাজীবন কারাগারে রাখতে অ্যাটর্নি জেনারেলের প্রচেষ্টার অন্ত নেই। তিনি রাষ্ট্রের আইন কর্মকর্তা নন, তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইন কর্মকর্তা।বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যলয় নয়াপল্টনে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেছেন ।এসময় তিনি বলেন, উচ্চ আদালতে যাতে এর প্রতিকার পেয়ে থাকি এবং উচ্চ আদালত যাতে নিরপেক্ষ থাকে সেটাই দেশের জনগণ প্রত্যাশা করে। অ্যাটর্নি জেনারেলের হাজার চেষ্টার মধ্যেও যতটুকু প্রতিকার পাওয়া যায় উচ্চতর আদালত থেকে।
তিনি আরো বলেন, যেভাবে প্রধান বিচারপতিকে বন্দুকের জোরে জিম্মি করে পদত্যাগ পত্রে সাক্ষর নেওয়া হয়েছে। তার সাথে নিম্ন আদালতে সরকারের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সেখানে ন্যায় বিচার পাওয়ার আশা খুবই খিন্ন । যার বহিঃপ্রকাশ দেখা যাচ্ছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মামলায়। বেগম খালেদা জিয়ার মামলায় তার জামিনকে বিলম্বিত করছে সরকার, তা সকল জনগণের জানা ।রিজভী বলেন, দুদক এখন বিরোধী দলকে দমনের প্রধান হাতিয়ার। খালেদা জিয়ার জামিনের বিরুদ্ধে দুদকের লিভ টু আপিল এটাই প্রমাণ করে।

আপনি কি পড়েছেন?

পরীক্ষা ছাড়াই অভ্যন্তরীণ বিজ্ঞপ্তিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় নিয়োগ

ওপেন বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় নিয়োগের কারণে যেহেতু আন্দোলন হয়েছে, তাই এখন থেকে অভ্যন্তরীণ বিজ্ঞপ্তির …